আগে সুস্থতা, পরে বিচার: সম্রাটের আইনজীবী

কারাগারে থাকা অবস্থায় বুকে ব্যথা অনুভব করায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটকে হাসপাতালে দেখতে আসেন তার আইনজীবী আফরোজা শাহনাজ পারভীন।

আজ মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে রাজধানীর জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে সম্রাটকে দেখতে আসেন তিনি। সকাল আটটায় সেখানে নেওয়া হয় সম্রাটকে।

এর আগে বুকে ব্যথা অনুভব করায় তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (ঢামেক) থেকে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) নেওয়া হয়।

আইনজীবী আফরোজা শাহনাজ পারভীন বলেন, ‘আমরা সম্রাটের সঙ্গে দেখা করার জন্য হাসপাতাল পরিচালকের কাছে গিয়েছিলাম। পরিচালক আমাদের জানিয়েছেন, তিনি চিকিৎসকদের পর্যবেক্ষণে রয়েছেন।‘

‘এরপর সিসিইউতে থাকা সম্রাটের সঙ্গে দেখা করতে হাসপাতালে থাকা কারা কর্তৃপক্ষের লোকজনের কাছে অনুমতি চাইলে তারা আমাদেরকে ভেতরে প্রবেশ করতে দেননি। তাই এখন আমরা ফিরে যাচ্ছি।‘

সম্রাটের অসুস্থতার কথা জানিয়ে তার আইনজীবী জানান, গত ১০ সেপ্টেম্বর সম্রাটের পেস মেকার লাগানোর কথা ছিল। পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন পালন উপলক্ষে তিনি আর দেশের বাইরে যেতে পারেননি।

সম্রাটের অসুস্থতা নিয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তার আইনজীবী বলেন, ‘আগে সুস্থতা, তারপরে বিচার। আগামীকাল আমরা আদালতে যাব। এবং এই বিষয়ে আদালতে একটি আবেদন করবো।‘

এসময় তিনি(আইনজীবী) প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানিয়ে সম্রাটকে চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে নিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে অনুমতি প্রার্থনা করেন।

আইজীবী আফরোজা শাহনাজ পারভীন আরও জানান, কারাগারে থাকা সম্রাটের সঙ্গে গতকাল তারা দেখা করেছেন। কারা কর্তৃপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে তার সঙ্গে অল্প কিছুক্ষণের জন্য কথা বলার সুযোগ পেয়েছিলেন। এ সময় সম্রাট বুকে হাত দিয়ে বার বার তার ব্যথার কথা বলছিলেন।

এর আগে বুকে ব্যথা অনুভব করলে সকাল সাড়ে ৭টায় সম্রাটকে কারাগার থেকে প্রথমে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নেওয়া হয়। এরপর ঢামেক চিকিৎসকদের পরামর্শে তাকে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে নেওয়া হয়।

গতকাল সোমবার রাতে সম্রাটের বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদক আইনের পৃথক দুই মামলায় ১০ দিন করে ২০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেছে পুলিশ। এই রিমান্ড শুনানি আগামীকাল বুধবার ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে অনুষ্ঠিত হবে।

রমনা থানা পুলিশ অস্ত্র ও মাদক আইনে মামলায় সম্রাটকে গ্রেপ্তার দেখানো-পূর্বক ১০ দিন করে ২০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন। ঢাকা মহানগর হাকিম ইয়াসমিন আরা আসামি সম্রাটের উপস্থিতিতে গ্রেপ্তার দেখানোর আবেদন ও রিমান্ড শুনানির জন্য বুধবার দিন ধার্য করেন।

উল্লেখ্য, গত রোববার বিকেলে কাকরাইলে সম্রাটের কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে মাদক, অস্ত্র ও ক্যাঙ্গারুর চামড়া উদ্ধার করে র‌্যাব। নিজ কার্যালয়ে পশুর চামড়া রাখার দায়ে ৬ মাস কারাদণ্ড দিয়ে কেরানীগঞ্জের কারাগারে পাঠানো হয় ঢাকা মহানগর দক্ষিণের বহিষ্কৃত সভাপতি সম্রাটকে। তার বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদক আইনে রমনা থানায় দুটি মামলা হয়েছে।

এর আগে গত রোববার ভোর ৫টার দিকে সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে কুমিল্লায় অভিযান চালিয়ে সম্রাট ও তার ঘনিষ্ঠ সহযোগী এনামুল হক আরমানকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

আরও পড়ুন