কেউ পানি পান করতে চাইলে, না দিলে কেমন দেখায়: প্রধানমন্ত্রী

যে দলেরই হোক বুয়েট ছাত্র আবরারের খুনীদের সর্বোচ্চ শাস্তি হবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, প্রয়োজনে হলে হলে অভিযান চালানো হবে। বুধবার (০৯ অক্টোবর) বিকেলে গণভবনে সাম্প্রতিক যুক্তরাষ্ট্র ও ভারত সফর নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরো বলেন, ছাত্র রাজনীতি নিষিদ্ধ করবে কি না সে বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোই সিদ্ধান্ত নেবে।

বিকেলে সম্প্রতি শেষ হওয়া জাতিসংঘ অধিবেশন ও ভারত সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলন শুরু করেন প্রধানমন্ত্রী। গণভবনে এ সংবাদ সম্মেলনে ঘুরেফিরে প্রাধান্য পায় চলমান ইস্যু। আবরার হত্যাকাণ্ড প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, অপরাধী যে দলেরই হোক ছাড় পাবে না।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, কে ছাত্রলীগ কে ছাত্রদল তা বিবেচনা করা হবে না। আমি কাউকে ছাড় দেব না। আমি বিবেচনা করেছি, অন্যায়ভাবে একটা বাচ্চা ছেলে তাকে হত্যা করা হলো। এবং পিটিয়ে কী অমানবিক। মারা পোস্ট পোর্টেম রিপোর্ট দেখেছেন। তার বাইরে তত না ইনজুরি না, সব ইনজুরি ভিতরে।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, বুয়েটের শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চালানোয় বাধা নেই। নিরাপত্তা রক্ষায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী প্রস্তুত রয়েছে। তবে ছাত্র রাজনীতি বন্ধ করার দাবীকে অযৌক্তিক বলেন শেখ হাসিনা। বুয়েট চাইলে রাজনীতি বন্ধ করতে পারে। তবে সার্বিকভাবে এই রাজনীতি বন্ধের দাবী অযৌক্তিক। এটা তো স্বৈরতান্ত্রিক দাবী। পুলিশকে বলবো সারাদেশে হল তল্লাশি চালান।

চলমান শুদ্ধি অভিযান প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই অভিযান চলবে। আগামী সম্মেলনে সুবিধাবাদী কেউ যেন কমিটিতে না আসতে পারে সেই দিকে সতর্ক থাকার নির্দেশ দেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, যে অন্যায় করবে সে শাস্তি পাবে। সে কোন দলের সেটা বিবেচনা করা হবে না। আমি যেটা বলেছি, সেই প্রমাণ তোমরা পাচ্ছো।

ভারতে গ্যাস বিক্রি ও ফেনী নদীর পানি নিয়ে ওঠা প্রশ্নেরও জবাব দেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি আরো বলেন, কেউ যদি পানি পান করতে চান, আমরা যদি সেটা না দেই তাহলে কেমন দেখায়। আমাদের আরো সীমান্তবর্তী নদী রয়েছে, সেটাও বিবেচনা করতে হবে। বাংলাদেশের কোন স্বার্থ শেখ হাসিনা বিক্রি করবে না।

তিস্তা ছাড়াও অভিন্ন ৭ নদীর পানি বণ্টন নিয়ে ভারতে সঙ্গে আলোচনা চলছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী। এছাড়া আসামের এনআরসি নিয়ে বাংলাদেশের চিন্তিত হবার কারণ নেই বলেন তিনি।

আরও পড়ুন